আপনার সমীপে আপনার আমানত

আপনার সমীপে আপনার আমানত

৳ 10.00

বইঃ আপনার সমীপে আপনার আমানত

লেখকঃ মাওলানা কালীম সিদ্দিকি দাঃবাঃ

অনুবাদকঃ মাওলানা আবু তাহের মেছবাহ দাঃবাঃ

প্রকাশনীঃ দারুল কলম

Qty:
Compare

Description

দুটি কথা

ছোট একটি শিশু।খালি পায়ে হেটে আসছে।হাটতে হাটতে তার কচি দুটি পা আগুনে পড়তে যাচ্ছে।আপনার চোখের সা্মনে।আ্পনি
কি করবেন তখন? নিশ্চয় আপনি ছুটে গিয়ে শিশুটিকে কোলে তুলে নিবেন।শিশুটিকে আগুন থেকে
বাচাতে পেরে অন্তরে ভীষণ পুলক অনুভব করবেন।অনুরূপভাবে যদি কোন ব্যাক্তিকে ঝলসে যেতে
দেখেন,পুড়ে যেতে দেখেন তাহলে আপনি অস্থির হয়ে পড়বেন।আপনার অন্তর বেদনায় ভার হবে।

আচ্ছা আপনি কখনো
ভেবে দেখেছেন-কেন এমনটি হয়!

?

আমাকে ক্ষমা করুন!

প্রিয় পাঠক।আমাকে  ক্ষমা করুন!আমি আমার ও আমার সকল মুসলমান ভাইদের
পক্ষ থেকে আপনার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি এই পৃথিবীর সবচে’ বড় শত্রু শয়তানের প্ররোচনায় পড়ে
আমরা আপনার কাছে আপনার সবচে’ দামি সম্পদ আপনার কাছে তুলে দিতে পারিনি।পাপকে ছেড়ে পাপীকে
ঘৃণিত করে তুলেছে এই শয়তান মানুষের অন্তরে।ফলে পৃথিবী আজ পরিণত হয়েছে রণক্ষেত্রে।এই
ভুলের কথা ভেবেই আমি আজ কলম তুলে নিয়েছি।ভেবেছি আপনার আপনার পাওনা পৌছে দিব।আপনার সাথে
কিছু প্রেম ও মানবতার কথা বলব।এই নিবেদন মনের টানে-কোন লোভ কিংবা সারথের টানে নয়।

একটি প্রেমম্য় নিবেদন

এটা আসলে বলার কথা নয়।তবুও আমি আশাবাদি, আমার এই কথাগুলো আপনি ভালবাসার চোখে দেখবেন।মমতাভরা মন নিয়ে
পড়বেন সারাজাহানের সৃষ্টিকরতার নিখুত নিয়ন্ত্রক মহান মালিকের কথা একটু ভাববেন।আপনার
হৃদয়ে যদি এই ভাবনার উদয় হয় তাহলেই আমি তৃপ্ত হবো। আমার মন সুখী হবে।ভাবব আমি আমার
ভাইয়ের হাতে তার প্রাপ্য পৌছে দিতে পেরেছি।মানুষ হিসেবে আমি আমার দায়িতব পালন করতে
পেরেছি।এই পৃথিবীতে মানুষ হিসেবে আগমনের পর যে সত্যটি অবশ্যই জানতে হয়,মানতে হয়-মানুষ
হিসেবে জীবনের সবচে’ বড় দায় ও করতব্যের সেই কথাটিই আমি আপনাকে বলতে চাই!সেই কথা মমতা
ও ভালবাসার!

ঈমান ও ইসলাম আল্লাহ পাকের সর্বশ্রেষ্ঠ নি‘আমত। যার ঈমান ও ইসলাম লাভ হয়েছে, সে যদি অন্য সকল নি‘আমত হতে বঞ্চিতও হয়, তবুও তার জীবন সফল। পক্ষান্তরে কেউ যদি ঈমান ও ইসলাম থেকে বঞ্চিত হয়, আর অন্যান্য নি‘আমতের পূর্ণ ভাণ্ডারও তার লাভ হয়, তবুও সে বঞ্চিত, হতভাগা, সর্বহারা।

আল্লাহ পাক মুসলিম উম্মাহ্কে এই সর্বশ্রেষ্ঠ নি‘আমতে ভূষিত করেছেন।

কাজেই মুসলিম উম্মাহ্র দায়িত্ব হলো, আল্লাহ পাকের এই শ্রেষ্ঠ নি‘আমত—ঈমান ও ইসলামের দাওয়াত অপরাপর সকল মানুষের নিকট যথাযথভাবে পৌঁছে দেওয়া।

জগতের সবচে’ বড় সত্য

এই জগতের,এই বিশব প্রকৃতির সবচে’ বড় সত্য হলো-এই জগত ও নিখিল সৃষ্টির সৃষ্টিকরতা ও মহান
নিয়ণ্ত্রক কেবল এক অদিতীয় মালিক।গুণ ও সত্তায় তিনি অদিতীয় ।এই জগতের সৃষ্টি,নিরমান।নিয়ণত্রন,ধবংস,বিনাশে
তার কোন অংশীদার নেই।এই নিখিল জগতের একটি পাতাও তার ইংগিত ছাড়া নড়তে পারে না,প্রতিটি
মানুষের আত্মাই তাকে সীকার করে।ধরম তার যাই হোক।একজন মুরতিপুজারীও এ কথা মানে যে এই
নিখিল জগতের প্রকৃত প্রতিপালক ও প্রভু সেই এক ও অদিতীয়   মালিক।

মানুষের বিবেকও একথাই বলে-এই পৃথিবীর মালিক এক ও অদিতীয় ।যদি কোন একটি বিদ্যালয়ে দুইজন হেডমাষ্টার
থাকে তাহলে সেটা অচল হয়ে পড়ে।এক গ্রামে দুইজন গ্রামপ্রধান হলে সেখানে কোন শৃংখলা থাকে
না।দুইজন রাজা হলে দেশ চলে না।এই জখন বাস্তবতা তখন এতবড় দুনিয়া কিভাবে একাধিক খোদা
কিংবা মালিকের দারা চলবে???????এই পৃথিবীর শৃংখলা বিধানে কী করে একাধিক সত্তা সক্রীয়
হবেন???????????????????????????????

একটি যুক্তি

কোরানআল্লাহর বাণী।কোরান তার সত্যতা প্রমাণের জন্যে এই পৃথিবীকে এই বলে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে-

“আমিআমার বান্দার প্রতি যে গ্রন্থ অবতীরণ করেছি তাতে তোমাদের কোন সন্দেহ থাকলে তোমরা এর
অনুরূপ কোন সুরা আনয়ন করো এবং তোমরা যদি সত্যবাদী হও তাহলে আল্লাহ ছাড়া তোমাদের সকল
সাহায্যকারীকে ডেকে নাও।”(বাকারা২৩)

চৌদ্দশবছর পূরব থেকে বরতমান অবধি এই পৃথিবীর মানুষ বিজ্ঞান ও কম্পিউটার পরযন্ত গবেষণা করে
ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।বাধ্য হয়ে মাথা নুইয়ে দিয়েছে।প্রমাণ করতে পারেনি – “কোরান আল্লাহর
কিতাব নয়”!

পবিত্রএই গ্রন্থে মালিক আমাদের বিবেক-বুদ্ধিকে আকরষণ করার জন্য অনেক প্রমাণ উপস্থাপন করেছেন।এর
একটি উপমা হলো-“যদি আকাশ ও পৃথিবীতে একাধিক উপাস্য ও মালিক থাকত তাহলে অবশ্যই বহু বিপত্তি
দেখা যেত”(সুরা আম্বিয়া-২২)

কথাস্পষ্ট।একাধিক মালিক থাকলে বিরোধ হত,লড়াই বাধত।একজন বলত,এখন রাত হবে।অপ্রজন বলত,এখন
দিন হবে।একজন বলত-রাত হবে ছয় মাস।অন্যজন বলত-না তিন মাস।একজন বলত-আজ সূরয উঠবে পশ্চিম
দিক থেকে,আর অন্যজন বলত-দক্ষিন দিক থেকে।দেব-দেবীর যদি সত্যিই ক্ষমতা থাকত,তারা যদি
বাস্তবেই আল্লাহ তায়ালার সাথে শরীক থাকত তাহলে দেখা যেত যে-একজন বান্দা এক দেবীর পূজা
করে খুশি করে ফেলেছে।তাই তিনি এখন বৃষ্টি দিতে রাজী।এমন সময় বড় দেবের পক্ষ থেকে হুকুম
এলো-আজ বৃষ্টি হবে না।ব্যস,তখন ছোট ছোট ভগবানরা হরতাল ডেকে বসত।আর এদিকে মানুষেরা হয়ত
বসে থাকত ভোরের অপেক্ষায় বা বৃষ্টির প্রত্যাশায়।কিন্তু ভোরের বা বৃষ্টির কোন খবর নেই।পরে
জানা গেলো-সুরয দেবতা বয়কট করে বসে আছে।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “আপনার সমীপে আপনার আমানত”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

X